Home / সারাদেশ / অটোরিকশা চালিয়ে প্রতিদিন হাজার টাকা আয় রাণীর

অটোরিকশা চালিয়ে প্রতিদিন হাজার টাকা আয় রাণীর

২২ বছর আগে ৭/৮ বছর বয়সে তাহিনপুর উপজেলা থেকে সুনামগঞ্জ শহরে আসেন যাত্রী রাণী দত্ত (৩২) । অনেক স্বপ্ন নিয়ে শহরে আসলেও তিনি চার দেয়ালে আবদ্ধ হয়ে যান। মায়ের সঙ্গে তিনিও মানুষের বাসার কাজ শুরু করেন। তখন ১০০ টাকা বেতনেও তাকে কেউ কাজ দেয়নি। অভাবের তাড়নায় অনেক কিছুই সইতে হয়েছে তাকে। কিন্তু তিনি তার স্বপ্ন চার দেয়ালে আটকে থাকতে দেননি।

যাত্রী রাণী দত্ত প্রথমে নিজ উদ্যোগে সেলাইয়ের কাজ শেখেন। এরপর টেইলার্সে কাজ শুরু করেন। টেইলার্সে কাজের টাকা দিয়ে ছোট বোনকেও বিয়ে দেন। এরই মধ্যে হৃদয় দত্ত নামে একজনের সঙ্গে পরিচয় হয় তার। এরপর তার সঙ্গে ভালোবাসা, ভালোবাসা থেকে বিয়ে। তবে সেই ভালোবাসার বিয়ে মেনে নেয়নি হৃদয় দত্তের পরিবার। বিয়ের ৯ বছর পেরিয়ে গেলেও যাত্রী রাণী দত্ত পাননি শ্বশুর-শাশুড়ির ভালোবাসা।

নাতি-নাতনির মুখ পর্যন্ত দেখতে চান না তারা। কিন্তু স্বামীর ঘরেও সুখ হয়নি তার। বিয়ের এক মাস কাটতে না কাটতে স্বামী হৃদয় দত্ত তাকে মারধর করেন। তাকে রোজ মারধর করতেন। এমনও হয়েছে কয়েকদিন হৃদয় বাসায় আসতেন না, খারাপ মেয়েদের সঙ্গে থাকতেন। এগুলো নিয়ে প্রতিবাদ করলেই তাকে নির্যাতন করেছেন। যখন বড় ছেলের জন্ম হয়েছে তখন পাশে পাননি স্বামীকে। একাই হাসপাতালে গিয়েছেন, সেখানে বাচ্চা প্রসবের পর একাই বাসায় এসেছেন। এখন তিন সন্তানের মা যাত্রী রাণী দত্ত। তাদের এক ছেলে দুই মেয়ে। সংসারের সব খরচ তার স্বামীই চালাতেন। তবে তিনি নিয়মিত কাজ করেন না।

কিছুদিন আগে যাত্রী রাণী সিদ্ধান্ত নেন আবার কিছু একটা করবেন। তিনি নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করবেন। সে কারণেই তিনি স্বামীর কাছ থেকে অটোরিকশা চালানো শিখেছেন। গত ৭ মার্চ তিনি অটোরিকশা নিয়ে প্রথমবার শহরে বের হন ।

Check Also

সিরাজগঞ্জে বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ৩

সিরাজগঞ্জে হানিফ পরিবহনের দু’টি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে তিন যাত্রী নিহত হয়েছেন। এতে আহত হয়েছেন আরও …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Website Design, Developed & Hosted by