Breaking News
Home / জাতীয় / সেনাবাহিনীর দ্বিতীয় এয়ার ডিফেন্স আর্টিলারি ব্রিগেড হচ্ছে

সেনাবাহিনীর দ্বিতীয় এয়ার ডিফেন্স আর্টিলারি ব্রিগেড হচ্ছে

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর দ্বিতীয় এয়ার ডিফেন্স আর্টিলারি (এডিএ) ব্রিগেড গঠন করা হচ্ছে। বিদ্যমান এয়ার ডিফেন্স আর্টিলারির বিভিন্ন ইউনিট পরিচালনায় প্রস্তাবিত এই ব্রিগেডে ১০৯ জন জনবল ও ১০টি যানবাহন যুক্ত হচ্ছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সম্প্রতি সরকারের প্রশাসনিক উন্নয়ন সংক্রান্ত সচিব কমিটির সভায় এই প্রস্তাবের পক্ষে সুপারিশ করা হয়। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সমন্বয় ও সংস্কার বিষয়ক সচিব এন এম জিয়াউল আলম বাংলা ট্রিবিউনকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ ও সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে বর্তমানে এয়ার ডিফেন্স আর্টিলারি ইউনিটের সংখ্যা ১১টি এবং এসব ইউনিট নিয়ন্ত্রণ ও পরিচালনার জন্য মাত্র একটি এয়ার ডিফেন্স আর্টিলারি ব্রিগেড রয়েছে। সামরিক সক্ষমতা অনুযায়ী, এ ধরনের একটি ব্রিগেড দিয়ে একই বড়জোর তিন-চারটি ইউনিটকে নিয়ন্ত্রণ ও পরিচালনা করা সম্ভব।

প্রসঙ্গত,নিয়মানুযায়ী যে ব্রিগেড একাধিক ইউনিট নিয়ন্ত্রণ করে থাকে, সেই সব ইউনিট সাধারণত একই সেনানিবাসে অবস্থান করে। কিন্তু বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর একমাত্র এয়ার ডিফেন্স আর্টিলারি ব্রিগেডটি ঢাকায় অবস্থান করলেও এই ব্রিগেডের অধীন ইউনিটগুলো বিভিন্ন সেনানিবাসে অবস্থান করছে। ফলে ইউনিটগুলোকে আদেশ, নিয়ন্ত্রণ, প্রশাসনিক কাজ, প্রশিক্ষণ অপারেশন এবং অভিযান একটি মাত্র ব্রিগেডের পক্ষে পরিচালনা করা কষ্টসাধ্য। এছাড়া, ভবিষ্যতে আরও সেনাবাহিনীতে আরও এয়ার ডিফেন্স আর্টিলারি ইউনিট সংযোজন হওয়ার কথা রয়েছে। এ অবস্থায় সেনাবাহিনীর জন্য দ্বিতীয় এয়ার ডিফেন্স আর্টিলারি ব্রিগেড গঠন করা জরুরি বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

সূত্রমতে, উন্নত বিশ্বের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে প্রযুক্তি ও কৌশলগত উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় দেশে নতুন নতুন উন্নয়ন প্রকল্প ও গুরুত্বপুর্ণ স্থাপনা তৈরি হচ্ছে। এরমধ্যে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প ও পদ্মাসেতু অন্যতম। দেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের সীমান্ত পরিস্থিতি ও চট্টগ্রাম বিভাগে অবস্থিত চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দর, ওয়েল রিফাইনারি, কক্সবাজার বিমানবন্দর, আবহাওয়া রাডার স্টেশন, বটতলী রাডার স্টেশন, কর্ণফুলি ব্রিজের আকাশ নিরাপত্তা জরুরি। জাতীয় অর্থনীতিকে গতিশীল করার লক্ষ্যে বিশেষ ভূমিকা রাখতে উন্নয়ন প্রকল্প ও গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা তৈরি মূলত ধারাবাহিক প্রক্রিয়া। জয়েন্ট এয়ার ডিফেন্স ড্রাফট ডকট্রিন অনুযায়ী, বিমান ও নৌবাহিনীর নিজস্ব স্থাপনা ও জাহাজ ছাড়া বাংলাদেশের সব গুরুত্বপূর্ণ স্থান ও স্থাপনায় আকাশ প্রতিরক্ষা দেওয়ার সার্বিক দায়িত্ব বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর।

Check Also

চুক্তি করেও কোনো লাভ হবে না বাংলাদেশের

ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যেকার কূটনৈতিক সম্পর্কে এই মুহূর্তে অস্বস্তির কেন্দ্রে আছে যে তিস্তা নদী, সেটি …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Website Design, Developed & Hosted by